সোমবার, ১০ নভেম্বর, ২০১৪

গল্প নিয়ে আলাপ : শাহনেওয়াজ বিপ্লব --রাতের কাহিনীকার

গল্পপাঠ : রাতের কাহিনীকার গল্পটি শুরু করেছিলেন কিভাবে?
শাহনেওয়াজ বিপ্লব :  বেশ কয়েকটি গল্প লেখার পর,খুব ইচ্ছে হচ্ছিল,ইতিহাস অবলম্বনে একটি গল্প লিখি। প্রথমে ইচ্ছে ছিল সূর্যসেন অথবা প্রীতিলতাকে নিয়ে লিখি। এরা দুজনই আমার চট্টগ্রামের । এর মধ্যে হঠাৎ করে হাতে আসে ভারতীয় লেখক ইরফান হাবিব-এর বই The Agrarian System of Mughal India 1556-1707। কর দিতে না পারায় চট্টগ্রাম থেকে মুঘল আমলে অনেক হিন্দুকে ধরে নিয়ে যাওয়া হতো মুঘল রাজদরবারে,যারা আর কোনোদিন ফিরে আসতে পারতোনা পরিবারের কাছে। বইয়ে লেখা এই তথ্যটি আমাকে বেশ স্পর্শ করে । আর তারপর থেকে আমি রাতের কাহিনীকার গল্পটি লেখার সিদ্ধান্ত নিই । অবশ্য গল্পটি কোনোদিন শেষ করতে পারবো ভাবিনি ।


গল্পপাঠ :  গল্পটি লিখবার সময় কি আপনি খুব দ্রুত এগিয়ে যেতে পেরেছিলেন? গল্পের আগাগোড়া সবটাই কি আপনি আগে থেকে ভেবে নিয়েছিলেন?
শাহনেওয়াজ বিপ্লব :  রাতের কাহিনীকার গল্পটি লেখা শুরু হয়েছিল কুঞ্জরানী নামে আমার এক হিন্দু বান্ধবীকে মনে রেখেই । লিখবার আগে বেশ কিছুদিন ধরে গল্পটা আমি ভেবেছি। কিন্তু, কলমটা হাতে না নেয়া পর্যন্ত কোনো ধারণাই আকার লাভ করেনি। লিখতে শুরু না করলে কিছুই পরিষ্কার হয়না। দুইমাস লেগেছিল গল্পটা লিখতে। প্রতিদিন দুই থেকে তিনঘণ্টা ইতিহাস বিষয়ে পড়াশোনা করতাম আর গল্পটি লিখে যেতাম ।

গল্পপাঠ : লেখা শোধরাতে আপনি কি অনেক সময় নেন?
শাহনেওয়াজ বিপ্লব :  খুবই কম।

গল্পপাঠ : একটি গল্প লেখা শুরু করার জন্যে কোন বিষয়টাকে গুরুত্ব দেন আপনি?
শাহনেওয়াজ বিপ্লব :   একটি চরিত্র ,কিংবা একাধিক চরিত্র এবং সম্ভবত গল্পের মাঝামাঝি পর্যন্ত কয়েকটি দৃশ্যের পরিকল্পনা । অবশ্য লিখতে লিখতে সবই বদলে যায় অনেকসময় ।

গল্পপাঠ :  আপনি কি জানাশোনা লোকদের চোখের সামনে রেখে গল্পের চরিত্র অঙ্কন করেন?
উত্তরঃ এ বিষয়টা নিয়ে আমি অনেক ভেবেছি । কিন্তু আমার পরিচিত লোকদের সাথে,আমার গল্পের লোকদের কোনো মিলই আমার চোখে পড়ে না । আমি বরং গল্পে কল্পিত লোকদের ওপরই একরকম বিশ্বাসযোগ্যতা আরোপ করি। আমি দুরকম কৌশলের কথা জানি। লোকেরা পরস্পরের সম্মুখীন হলে মুখোশ পড়ে থাকে। আবার একজন গল্পকার কিন্তু বাস্তবের মুখের ওপর,আর এক রকমের মুখোশ পরিয়ে দেন।

গল্পপাঠ :  গল্পের জন্যে  ইতিহাস বা বাস্তব থেকে উপকরণ গ্রহণ করাটাকে কিভাবে দেখেন ?
শাহনেওয়াজ বিপ্লব :  গল্পকারের কাজই হচ্ছে বাস্তবকে অবাক বানিয়ে দেয়া । একজন গল্পকার জীবন থেকে সেইসব মুহূর্তকে ছেঁকে নেয় ,যা আমাদের কাছে মুহূর্তের বেশি কিছু নয়। গল্প লেখার শুরুতে প্রথমেই সে একটি মুহূর্ত নেয়। তারপর আর একটি মুহূর্ত, তারপর আবার একটি মুহূর্ত --যে গুলোকে গল্পকার নিজের খুশিমতো একরাশ মুহূর্তের মিছিল হিসেবে সাজিয়ে দেন । কোনো একটি বিশেষ কেন্দ্রীয় ইমোশন এই মুহূর্তগুলোকে একসঙ্গে ধরে রাখে।

গল্পপাঠ :  একজন গল্পকার নিজেকে গল্পকার বলে কল্পনা করেন বলেই কি গল্প লিখিত হয়?
শাহনেওয়াজ বিপ্লব :   না । লেখক নিজেকে নায়ক বলে কল্পনা করে তারপর সে এমন একজন গল্পকার খুঁজে বেড়ায়,যে তার কাহিনী লিখতে পারে।

গল্পপাঠ : এবং বারবার সে একই গল্পকারকে খুঁজে নেয় ?
উত্তরঃ মোটের ওপর তাই। মোটামুটি আমার মনে হয়,একটিই গল্প আমি বারবার লিখি । আমি একটি গল্পের চরিত্রকে ধাওয়া করে,আর একটি গল্পে নিয়ে আসি । একই আইডিয়া আমার মাথায় থাকে । শুধু দেখবার দৃষ্টিকোণ,সাজাবার কৌশল,আলোকসজ্জা-এইগুলোকেই বদলে ফেলি ।

গল্পপাঠ : লেখক হিসেবে রাতের কাহিনীকার গল্পটির কোনো ত্রুটি কি আপনার চোখে পড়ে ?
উত্তঃ খুবই মোটাভাবে বললে,বলা যায়,মোটের ওপর গল্প হয় দুরকমের। একরকম গল্প আছে,যেখানে ইতিহাস বা কাহিনীটাই প্রধান। কাহিনীকে আকর্ষণীয় করার জন্যে,লেখক আর সবকিছুই তুচ্ছ করেন। অন্য জাতটি হললো সেইসব গল্প; যা চরিত্র ও ঘটনার মর্মোদ্ধার করার চেষ্টা করে । আমার রাতের কাহিনীকার গল্পটি ইতিহাসনির্ভর ও কাহিনীপ্রধান। এরকম গল্পে জীবনের ছোট-বড় অনেক প্রশ্ন ও চমককে এড়িয়ে যেতে হয় । যা গল্প পাঠের আনন্দটাকে মাটি করে দেয় অনেক সময়।

গল্পপাঠ :  আপনি কি আপনার শক্তির সীমাবদ্ধতার কথা মনে করে আপনার গল্প-প্রয়াসকে সাধ্যের মধ্যে রাখেন?
শাহনেওয়াজ বিপ্লব :   রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর আমার প্রিয় গল্পকার। তার গল্পগুচ্ছের গল্পগুলোর কথা মনে করলে, আমি আমার শক্তির সীমাবদ্ধতার কথা স্বীকার করি। তবে গল্প লেখার সময়,এই সীমাবদ্ধতার কথা আমি মনে রাখি না। সর্বোচ্চ  সামর্থ্য দিয়ে আমি শ্রেষ্ঠ গল্পটি লেখার চেষ্টা করি।


শাহনেওয়াজ বিপ্লবের গল্পের লিঙ্ক : রাতের কাহিনীকার


লেখক পরিচিতি:
সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ,যে কজন তরুণ প্রতিশ্রুতিশীল আর মেধাবী গল্পকার পেয়েছে,শাহনেওয়াজ বিপ্লব তাদের মধ্যে  অগ্রগণ্য। সমসাময়িকতা,রাজনীতি,দেশভাগ এসবই ঘুরিয়ে ফিরিয়ে তার গল্পের বিষয় বলে মনে হলেও বিশেষ করে তার জন্মস্থান সীতাকুণ্ড আর চট্টগ্রামের ইতিহাস,ঐতিহ্য এবং  চাটগাঁর সাধারণ মানুষের অতি অসাধারণ কাহিনীই তার প্রতিটি গল্পের উপজীব্য। পড়াশোনা করেছেন চট্টগ্রাম কলেজ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়,কলকাতা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ও অস্ট্রিয়ার ভিয়েনা আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে । ইত্যাদি গ্রন্থপ্রকাশ থেকে আগামী বইমেলায় প্রকাশিত হতে যাচ্ছে তার প্রথম গল্পগ্রন্থ উপনিবেশ। বর্তমানে তিনি ভিয়েনা আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত আছেন।    

৭টি মন্তব্য:


  1. গল্পকার শাহনেওয়াজ বিপ্লব ভাইয়ের সাথে ব্যক্তিগত যোগাযোগটা খুব বেশি দিনের না । ওনার গল্প নির্মাণের দক্ষতা আবিষ্কারের পর ফেসবুকে যোগাযোগ করি ।

    সমসাময়িক লেখকদের অনেকের লেখাই ভালো লাগে । কিন্তু এই ভালো লাগাটা যেভাবেই হোক এক সময় আর ধরে রাখতে পারি না । তারা হারিয়ে যান কিভাবে যেন । কিন্তু শাহনেওয়াজ বিপ্লব ভাই তার প্রতিটি লেখাতেই নিজেকে নতুন নতুন চমক নিয়ে এসে তাক লাগিয়ে দেন । অসাধারণ গল্প নির্মাণ দক্ষতা তার ।

    তরুণ লেখকদের মধ্যেতো অবশ্যই, তার লেখা কোথাও কোথাও আগ্রজদেরও ছাড়িয়ে যায় ।

    @গল্প নিয়ে আলাপ : শাহনেওয়াজ বিপ্লব --রাতের কাহিনীকার@

    এই লেখাটি পড়তে পড়তে বারবার চমকে উঠলাম উনার বুদ্ধিদীপ্ত জবানীতে ।

    অনেক শুভকামনা বিপ্লব ভাইয়ের জন্য তারচেয়েও বেশি প্রত্যাশা, যেন হারিয়ে না যান প্রিয় এই গল্পকার ।

    উত্তরমুছুন
  2. আন্তরিক ধন্যবাদ,প্রিয় গল্পকার। খুব অনুপ্রাণিত হলাম,আপনার মন্তব্যে।

    উত্তরমুছুন
  3. Great and congrats dear writer for your nice saying as to the trips and techniques for making a story and thanks for your wise saying and important message to the audience like me who needs more to know pertaining how to make a story. thanks

    উত্তরমুছুন
  4. First i would like to congratulate you for stepping ahead for your writing. good luck for your excellent writing.

    উত্তরমুছুন
  5. অনেক অনেক ধন্যবাদ,প্রিয় Salam Abdus Khan। তবে এ সাক্ষাতকারের জন্যে আমি galpopath.com -এর কাছেই ঋণী । তারা লেখাটি প্রকাশ না করলে,গল্প নিয়ে এরকমভাবে হয়তো কোনোদিন ভাবা হতো না।

    উত্তরমুছুন
  6. প্রিয় humayun Kabir ভাই, আমার লেখাটি কষ্ট স্বীকার করে পড়ার জন্যে এবং মন্তব্যের জন্যে অনেক অনেক ধন্যবাদ,আপনাকে ।

    উত্তরমুছুন
  7. গল্পের কলাকৌশল নিয়ে দুর্দান্ত একটি লেখা পড়লাম । গল্পপাঠকে ধন্যবাদ,চমৎকার এই লেখাটির জন্যে। শাহনেওয়াজ বিপ্লবকেও ধন্যবাদ, সে সাথে।

    উত্তরমুছুন