শনিবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

দেমেত্রেও আগিলেরা মালতা'র গল্প : যে চোলো ছেলেটি প্রতিশোধ নিয়েছিল

অনুবাদ : জয়া চৌধুরী 

- কাউকে তোর মত ভালবাসি না, জানিস তুই? তোর জন্য নাবিক হয়েছি। দূর দূর দেশে পাড়ি দিয়েছি... তোর জন্য অপরাধী হতে হতে বেঁচে গেছি। এমনকী বেচারী বুড়ি মাটাকেও ছেড়েছি। তুই আমায় ঠকালি! মজা করলি আমায় নিয়ে... আমিও ছাড়ব না, শোধ তুলব। তোর লাইফে যা যা হয়েছে... আগেই জানতাম এগুলোই হবে। ওই জন্যই মাতালটার সাথে তোকে ছেড়েছি। তোকে আর তোর বাচ্চাগুলোকে ধরে শালা পিটিয়েছে!

তীর ফেনায় ঢেকে গেছে। সমুদ্র যেন ফুঁসে ফুঁসে উঠছে। লাল নীল রঙা মাছের মত বিশাল ঢেউগুলো পাথরের ওপর আছড়ে পড়ছে। চুপ করে শুনছে আন্দ্রেয়া। 

- অন্য কেউ যদি হত... আহ্‌ ... ওই হারামী আন্দ্রেসকে চ্যালেঞ্জ করেছিলাম, ওকে তো মেরেই ফেলতাম... কিন্তু নাঃ ওর তো কোন দোষ নেই। দোষ তোর, স্রেফ তোর। আমি যেমন কষ্ট পেয়েছি তোকেও ঠিক তেমনি কষ্ট পেতে হবে। 

কথার মাঝখানে বাধার মতন বিপুল স্বচ্ছ সূর্যের ছটার মত ঢেউ এসে তার দুপায়ের ফাঁকে পড়ছিল। প্রচন্ড গর্জনে গলার স্বর ডুবে যাচ্ছিল। মেলকিয়াদেস- এর কথা শুনতে হলে আন্দ্রেয়াকে তার কাছাকাছি যেতে হত। উল্টোদিকে বড্ড ঠান্ডাও লাগছে ... 

- তোর মনে আছে ব্যাপারটা কিভাবে হয়েছিল? আমার তো মনে যেন কালকের কথা। আমরা ছোট ছিলাম, একসঙ্গে বড় হয়েছি। ওরমই হবার কথা। মনে আছে? কথা দেওয়া হয়ে গেছিল। বিয়ে করছিলাম আমরা... হঠাত দোন গুয়াইয়ামাবে আমকে বারসায় চাকরি করতে পাঠালেন। আর আমি... টাকার দরকার ছিল, চলে গেলাম... মনে হয় কেঁদেছিলি তুই। 

মাসখানেক কেটে গেছিল। গুয়াইয়াস এর রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলাম। তাড়াতাড়ি ফিরতে পারার আনন্দে মশগুল, সঙ্গে মাদেইরার বোতল ... বাদুলাকে বলল তুই আন্দ্রেসের সঙ্গে চলে গেছিস। তোর ব্যাপারটা জানতাম না। মনে আছে তোর? 

কড়া ঠান্ডা পড়েছে। বিকেলটা আরো ঘনিয়ে এসেছিল। সমুদ্র শান্ত হয়ে আসতে শুরু করেছিল। ঢেউগুলো আলতো করে তীরের গায়ে আছড়ে পড়ছিল। যেন বালান্দ্রা বিচের গায়ে মোম জ্বলছে। 

- কষ্ট হল সেইসঙ্গে সাহসও এল। ওকে খুন করতে ইচ্ছে করল। তারপর দেখলাম নিজের ওপর শোধ নেওয়া বরং বেশি ভাল হবে- আন্দ্রেসকে চিনতাম । জানতাম যে ওর সঙ্গে থাকলে তোর জন্য স্রেফ লাঠি আর দুঃখই অপেক্ষা করে থাকবে। তাই নিজের ওপর প্রতিশোধ নেওয়াটাই বেটার হবে... তারপর? আমি কাজ করেছি অনেক, প্রচুর। নুয়েই সোনা, জীবনতা আমি তোর চেয়ে বেশি জানি। অনেক শহরে ঘুরেছি। অনেক মেয়েমানুষ দেখেছি। কেবল একটা মাস শুধু ছিলাম না। আর তুই! তোর নিজের কাজ দ্যাখ ! 

সূর্য ম্যানগ্রোভ পাতার পেছনে লুকোচ্ছিল। দারুণ রশ্মি ওর মাথার চুলে রঙ বেরঙের নাচ খেলে যাচ্ছিল। জীবন্ত হয়ে উঠছিল পাথরেরা। কী যেন বলে লোকেরা ওটাকে! সমুদ্র তখন নানারঙা সমতল। 
- পালটে যাওয়া তোকে খুঁজে পেলাম। তুই জানিস- তুই কুচ্ছিত, হিলহিলে রোগা, নোংরা। এখন তোর আর কোন দাম নেই। এখন স্রেফ কষ্ট পাবি এই ভেবে যে আমার সঙ্গে গেলে কেমন থাকতিস আর এখন কেমন আছিস। জানিস? দ্যাখ ওই দ্যাখ, তোর স্বামী সন্ধ্যার খাবারের জন্য অপেক্ষা করছে আর তোর জন্য অপেক্ষা করছে স্রেফ পিটুনি... 


ডিঙি নৌকোর ছই বাড়তে লাগল। গ্যানেট পাখিরা আকাশে ধীরে ধীরে চক্কর কাটছে। সমুদ্র শান্ত এবং থেমে গেছিল। অদ্ভূত একটা হাসি চোলো ছেলেটির ঠোঁটে ফুটে উঠল। সে প্রতিশোধ নিয়েছিল। 

· লাতিন আমেরিকায় “চোলো” বলা হয় মিশ্র রক্তের মানুষদের। শ্বেতাঙ্গ ও কৃষ্ণাঙ্গ দের মিশ্রণে যাদের জন্ম এবং দেহগত বৈশিষ্ট্যে অধিক মাত্রায় কৃষ্ণাঙ্গ ঘেঁষা।








অনুবাদক
জয়া চৌধুরী

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন