মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২১

মোহিত কামালের মরুঝড় উপন্যাসের বিষয়ভাবনা ও চরিত্রের মনস্তত্ত্ব নিরূপণ : জাকিয়া রহমান



সমাজবদ্ধ মানুষ হিসেবে একজন কথাসাহিত্যিক তাঁর চারপাশে দৃশ্যমান সমূহ সমস্যা ও সংকটকে লেখনীর মাধ্যমে উপস্থাপন করেন। কেননা মানুষের ব্যক্তিগত, সামাজিক ও রাষ্ট্রিক সমস্যা সম্পর্কে অন্ধত্ব ঘুচিয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করাই লেখকের দায়বদ্ধতা। কথাসাহিত্যিক মোহিত কামালও এর ব্যতিক্রম নয়। মরুঝড় উপন্যাসে লেখকের কথা এবং পরিমার্জিত চতুর্থ প্রকাশের নিবেদন অংশে লেখক তাঁর অভিজ্ঞতা-উপলব্ধি এবং দায়বদ্ধতার কথা স্বীকার করেছেন। তাঁর মরুঝড় উপন্যাসটি বাংলা সাহিত্যে এক অনন্য সংযোজন। তপ্ত মরুর বুকে প্রবাসী বাঙালি শ্রমিকদের প্রতি মুহূর্তের সংকটময় জীবন সংগ্রাম ও শৃঙ্খলিত পরাধীন জীবনকে তিনি দেখেছেন। শ্রমিকদের মুখ থেকে শুনেছেন তাদের অভাব অভিযোগ তথা পরাধীন প্রবাসী জীবনখোড়া নিত্য সমস্যার কথা। সমাজ সচেতন এ কথাশিল্পী সে বাস্তব অভিজ্ঞতায় প্রাণ সঞ্চার করে মরুঝড় উপন্যাসের মাধ্যমে উপস্থাপন করেছেন।
লেখক ২০১২ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই শহরে মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেন। সেই সুবাদে দুবাইয়ের মানুষের জীবন-জীবিকা, দালানকোঠা, রাস্তাঘাট, শেখদের ধনাঢ্য জীবন, বিশাল বিস্তৃত মরুপ্রান্তর, মরুঝড়সহ প্রবাসী বাঙালি শ্রমিকদের সুখ-দুঃখ সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা লাভ করেন। শেখ আমিরদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়ার পাশাপাশি তিনি স্বদেশি শ্রমিকদের একান্ত আপন হয়ে যান। মননে ধারণ করা লেখক-সত্তার তাড়না বা অন্তর্নিহিত সুপ্ত মানবিকতা বোধে উদ্বুদ্ধ হয়ে মোহিত কামাল শ্রমিকদের দলে মিশে গেছেন। স্বদেশি ভাইদের কষ্ট অনুধাবনে হেঁটেছেন মরুভূমির তপ্ত বালুচরে। সংসার জীবনে নিত্য পোড় খাওয়া মানুষগুলো যেন ভিটেমাটি বিক্রি করে সর্বস্বান্ত হয়ে মরুভূমির বুকে পুড়তেই যায়। পাশাপাশি দেশের মাটিতে তাদের স্বজনদের অন্তরাত্মা পুড়ে ছাই হয়। সঙ্গীর সঙ্গে দীর্ঘ বিচ্ছেদ ও ভুল বোঝাবুঝির ছিদ্রপথে প্রবেশ করে ভাঙন। ছিন্ন হয় সম্পর্ক। শরীর পুড়ে মরুর উত্তপ্ত রোদে আর মন পুড়ে ভুল বোঝাবুঝি আর বিচ্ছিন্নতার কষ্টের আগুনে।

মোহিত কামাল দুবাইয়ের ধনাঢ্য আমির শেখদের পূর্ণাঙ্গ জীবনচিত্র মরুঝড় উপন্যাসে রূপায়িত করতে পারতেন। বুঝিবা লেখকের সে অভিপ্রায় নেই। বিজাতীয় সংস্কৃতির উচ্চবিত্ত আমিরদের জীবনভাষ্য নয়, তিনি সচেতন প্রয়াসে স্বজাতি প্রবাসী ভাইদের দুঃখ-দুর্দশাকে উপন্যাসের কলেবরে স্থান দিতে চেয়েছেন। সঙ্গত কারণেই আমির শেখদের বাঁধনহারা উচ্ছৃঙ্খল বর্ণাঢ্য জীবন এ উপন্যাসে অনুপস্থিত। যদিও বাঙালি শ্রমিকদের জীবনগাথা রচনায় একটি শেখ পরিবার অর্থাৎ দুবাই কলিদের পারিবারিক দম্ভ, ঐতিহ্য ও বিলাসী জীবনচিত্র মরুঝড় উপন্যাসে স্থান পেয়েছে।

লেখক একাধারে কথাসাহিত্যিক ও মনোবিদ হওয়ায় মানব মনের গতিবিধি নির্ণয়ে দক্ষ। সঙ্গত কারণেই লেখকের চরিত্র সৃজনের বিচক্ষণতায় উপন্যাসের প্রতিটি চরিত্র হয়ে উঠেছে জীবন্ত ও প্রাণবন্ত। চরিত্রগুলোর সক্রিয়তায় কাহিনি পরিণতির দিকে দ্রুত এগিয়ে চলেছে। মরুঝড় উপন্যাসের প্রারম্ভেই পাঠক মরুঝড়ের দর্শন লাভ করে এক নতুন অভিজ্ঞতা অর্জন করে। কাহিনির মোড়ক উন্মোচনের শুরুতে মরুঝড় ওঠায় পাঠক মন তাৎক্ষণিক ভীত সন্ত্রস্ত হয়। ততোধিক ভয়ঙ্কর ঝড়ের আশঙ্কায় শঙ্কিত পাঠক পরবর্তীকালে আর কোনো প্রাকৃতিক বালুর ঘূর্ণিঝড়ের সম্মুখীন হয় না। তবে পাঠক মন মরুর বুকে প্রাকৃতিক ঝড়ের ঘূর্ণায়মান বালুর কুণ্ডলির চেয়ে শতগুণ বড় ঝড়ের কুণ্ডলির বাঁকে ঘুরপাক খেতে থাকে। কেননা মনোরাজ্যের ঝড় মরুঝড়ের চেয়ে কম ভয়ঙ্কর নয়। চিরসত্য এ বিষয়টি লেখকের শিল্প নির্মাণের দক্ষতায় কাহিনির গাঁথুনিতে সুস্পষ্টভাবে স্থান করে নিয়েছে।

মরুঝড় উপন্যাসটি ২০১২ সালে দৈনিক জনকণ্ঠ পত্রিকার সাহিত্য শাখায় ধারাবাহিকভাবে প্রকাশিত হয়। পরবর্তীকালে পুস্তক আকারে প্রকাশিত হয় ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে। উপন্যাসে দুবাই প্রবাসী রুস্তম বাঙালি প্রবাসী শ্রমিক শ্রেণির প্রতিনিধি। নববধূ কলিকে মায়ের দায়িত্বে বাড়িতে রেখে সে জীবিকার সন্ধানে প্রবাস জীবন বেছে নিয়েছে। জন্মধাত্রি মায়ের স্বরূপ, মনস্তত্ত্ব ও সংকট রুশনা বেগমের চরিত্রে বাস্তবতার নিরিখে ফুটে উঠেছে। রুশনা বেগম একদিকে রুস্তমের জননী অন্যদিকে পুত্রবধূ কলির শাশুড়ি। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘হৈমন্তী’ গল্পে নববধূ হৈমন্তীকে শ্বশুরবাড়িতে প্রতিনিয়ত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়েছে। হৈমন্তীর শুভাকাক্সক্ষী কেউ ছিল না। শ্বশুরবাড়ির সদস্যরা সকলেই এক একজন বিজ্ঞ পরীক্ষক রূপেই ছিলেন। হৈমন্তী গল্পটি সবুজপত্র পত্রিকায় ১৯১৪ সালে প্রথম প্রকাশিত হয়। একশত বছর অতিক্রান্ত হলেও এই একবিংশ শতকেও নববধূর প্রতি শ্বশুরবাড়ির মানুষদের আচরণ ও মানসিকতা অধিকাংশে একই রয়ে গেছে। উপন্যাসে ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক কুফিয়ার সংসার ভাঙার বর্ণনায় প্রমাণ মিলে বিষয়টি শুধুমাত্র বাঙালির সংস্কার বা মজ্জাগত সমস্যা নয়। নববধূকে নির্যাতন বিশ্বের অনেক স্থানেই প্রচলিত রয়েছে। হৈমন্তী শ্বশুর বাড়িতে প্রধানত যৌতুকের কারণে নির্যাতিত হয়েছে অন্যদিকে কলির নির্যাতনের কারণ কাহিনির প্রয়োজনে ভিন্ন ধারায় প্রবাহিত হয়েছে। স্বরূপটি এক না হলেও মানসিক নির্যাতন ও শাশুড়ি কর্তৃক পুত্রবধূকে আপন করে না নেওয়ার বিষয়ে শতভাগ মিল লক্ষণীয়।

পুত্র সন্তানের জননী পুত্রের বিয়ের পরে মানসিক হীনমন্যতায় ভোগে। এ সময় তার পুত্রের প্রতি ষোলআনা অধিকারবোধে আঘাত লাগে। সংকীর্ণ মনের উদ্ভট চিন্তায় পুত্রের অধিকার আদায়ের যুদ্ধে শাশুড়ি নবপরিণীতা বধূকে প্রতিদ্বন্দ্বী ভাবতে শুরু করে। যেকোনো উপায়ে বধূর নামে না সূচক কথা উপস্থাপন করে ছেলের কান ভারি করে তোলে। নবদাম্পত্য জীবনের বিশুদ্ধ প্রেমপূর্ণ সম্পর্কের মাঝখানে হামলে পড়ে শাশুড়ির মনগড়া অভিযোগ। বিশুদ্ধ প্রেম বিষময় হয়ে ওঠে। শুরু হয় স্বামী-স্ত্রীর চূড়ান্ত মনস্তাত্ত্বিক সংকট ও সম্পর্কের দূরত্ব। শাশুড়ি ব্যক্তিটি শুধুমাত্র ছেলেকে দখলে রাখার নীরব প্রতিযোগিতায় নিজের অজান্তেই ছেলের সুখি-সত্তায় আগুন জ্বেলে দেন। মনোজগতের ভুল পরিকল্পনায় হয়তো কখনও কখনও তিনি ক্ষণিক বিজয়ের হাসিতে পুলকিত হয়ে ওঠেন। অধিকাংশ বাঙালি সংসারে গতানুগতিক এই একই চিত্র হাজার বছর ধরেই প্রবহমান। মরুঝড় উপন্যাসে সে প্রবহমানতার সাক্ষী হিসেবে রুশনা বেগম চরিত্রটি ফুটে উঠেছে।

কলির শাশুড়ি রুশনা বেগম পুত্রবধূর প্রতি উদার নয়। বাড়ির বাহিরে শৌর্যের মতো কিশোরের সঙ্গে হঠাৎ দেখা হলেও তিনি কলির দিকে সন্দেহের তির নিক্ষেপ করেছেন। অন্যদিকে তার কন্যা রওনক জাহান পূর্ব প্রেমিক মনিরের সঙ্গে ভরা সন্ধ্যায় পুকুর পাড়ে ত্রিশ মিনিট সময় কাটিয়ে আসলে তিনি সামান্য বিব্রত হয়েছেন মাত্র। বিদ্রোহ করেননি বা মেয়েকে অবিশ্বাস করেননি। এই একটি ঘটনায় পরিবারে বধূ এবং কন্যার অবস্থানটি কথাশিল্পী মোহিত কামাল অত্যন্ত সুন্দরভাবে তুলে ধরেছেন। প্রকৃতপক্ষে স্বামীর উপস্থিতিতেই নববধূকে সংসারের নানা প্রতিকূল পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়। স্বামীর অনুপস্থিতিতে সে অত্যাচার বহুগুণ বৃদ্ধি পায়। উপন্যাসে প্রবাসী রুস্তমের সুন্দরী বধূ কলি শাশুড়ির মাত্রাতিরিক্ত অভিভাবকত্ব এবং পুত্রের প্রতি তার একচ্ছত্র অধিকার রক্ষার প্রাণান্ত চেষ্টায় মিথ্যা দোষারোপে শতধা ছিন্ন বিচ্ছিন্ন হয়েছে। কলির শাশুড়ি মোবাইল ফোন নিজের মালিকানায় রেখেছে। রুস্তমের সঙ্গে ফোনে কথা বলায় তার প্রবল আপত্তি রয়েছে। ছেলের বউয়ের প্রতি আকর্ষণ সৃষ্টি ও ভালোবাসায় বাধা সৃষ্টি করাকেই তিনি যুক্তিযুক্ত ভেবেছেন। সঙ্গত কারণেই শৌর্য কেন্দ্রিক বানোয়াট মিথ্যা অভিযোগের বিষ রুস্তমের কানে ঢেলে দিয়ে তৃপ্ত হয়েছেন। পরিণামে যন্ত্রণায় ছটফট করেছে রুস্তম ও কলি।

শাশুড়ির মনগড়া অভিযোগ, কলিকে অহেতুক সন্দেহ করা সর্বোপরি স্বামীর সঙ্গে কলির নিয়মিত যোগাযোগ বন্ধ করার মতো ঘৃণ্য কাজ তার মনে গভীর ক্ষোভের জন্ম দিয়েছে। এই ক্ষোভের বশবর্তী কলি বিদ্রোহী হয়ে ওঠে। গায়ে বোরখা চাপিয়ে শাশুড়ির অনুমতি ছাড়াই উপজেলা পরিষদ অফিসে পৌঁছে স্বামীর খবর জানতে চায়। স্বামীর সম্ভাব্য আরো সংবাদ জানার জন্য উদগ্রীব কলি জাফর আহমেদের দেওয়া মুঠোফোনটি নিতে বাধ্য হয়। কলি বালিকাবধূ হলেও সামাজিক আচার-বিধি সম্পর্কে যথেষ্ট সচেতন। সমাজের অদৃশ্য শৃঙ্খল বোঝে বলেই সে শৌর্যের মাছ ধরার সাথী হতে পারে না। ইচ্ছে হলেই শৌর্যের সাথে স্বাভাবিক কথা বলতেও পারে না। সঙ্গত কারণেই সে জাফর আহমেদের মুঠোফোনটি নিতে অনাগ্রহ প্রকাশ করেছে। শাশুড়ির কটু কথাসম মিথ্যা অভিযোগে রক্তাক্ত হয়েছে কলির অন্তরাত্মা। অনেক সময় দিশেহারা অবস্থাতেও সে বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছে। স্বামীর মুক্তির প্রচেষ্টায় প্রথম স্ত্রী হিসেবে দ্বিতীয় বিয়ের অনুমতি পত্র শৌর্যের মাধ্যমে দুবাই পাঠানোর ব্যবস্থা করেছে। সর্বোপরি স্বামীর কল্যাণ কামনায় তাকে বিপদমুক্ত করতে বাঙালি নারীর সীমাহীন আত্মত্যাগের চিত্রটি উপন্যাসে চিত্রায়িত হয়েছে।

কলির চেতনায় শুভবুদ্ধির পাশাপাশি উপন্যাসে তার অবচেতন মনের দুরভিসন্ধির সংকেতও রয়েছে। শৌর্যের বাড়বাড়ন্ত শরীরের দিকে তাকিয়ে তার শরীরকে চকচকে রুপালি রাজপুঁটি মনে হওয়ায় চিরাচরিত মানবমনের অবচেতন স্তরের প্রবৃত্তির দিকটি প্রকাশিত হয়। প্রবাসী স্বামীর বালিকা বধূর একাকিত্বকে জোরালোভাবে প্রকাশ করার প্রয়োজনে; বিরহী বধূর কামনাকে জানান দিতে লেখক বাগানের মাঝে জোড়া সরবতী লেবু, কোকিলের ডাক, নীল মেঘের আনাগোনা, রাজপুঁটির চকচকে শরীর ইত্যাদি নানা উপমা ও রূপক ব্যবহার করেছেন। প্রকৃতপক্ষে কলির মনের চেতন-অবচেতন স্তরজুড়ে যে ভালোবাসা তা দখল করে আছে স্বামী রুস্তম। কলি রুস্তমের অনুপস্থিতিতে কিশোর দেবর শৌর্যের বাড়বাড়ন্ত শরীরের প্রতি যে কিঞ্চিৎ মোহময় দৃষ্টি ফেলেছে তার জন্য প্রাথমিক দৃষ্টিকোণে শাশুড়ির ক্রমাগত সন্দেহকে দায়ী করা যায়। স্বাভাবিক জীবন চলায় হয়তো কলির মন শৌর্যের শরীরের প্রতি এতটা তীক্ষè দৃষ্টি নিক্ষেপ করতো না। কেননা বাঙালি বিরহী বধূর স্বামীর জন্য অস্থিরতার সবটুকু কলি চরিত্রে লক্ষণীয়। ছেলের অনুপস্থিতিতে রুশনা বেগম নিজের অজান্তেই বালিকা বধূকে অপ্রীতিকর কথার মাধ্যমে শৌর্যের দিকে ঠেলে দিচ্ছিলেন। তবে শুদ্ধ সত্তার অধিকারী কলি সার্বিকবোধ ক্ষমতার দ্বারা নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করেছে। কলি নিজের মনের চাওয়ার কাছে পরাজিত হয়ে উপলব্ধি করেছে তাকে নিয়ে শাশুড়ির উৎকণ্ঠার যৌক্তিকতা। অর্থাৎ শাশুড়ি শৌর্যের সঙ্গে কথা বলা পছন্দ করেন না কেন এ বিষয়টি তার কাছে পরিষ্কার হয়েছে।

লেখক কলির অবচেতন মনের ইঙ্গিতকে নির্বাপিত করে বিবাহিতা বাঙালি নারীর ধর্ম রক্ষা করেছেন। ভাবির জন্য শৌর্যের মনে রয়েছে দায়িত্ববোধ ও ভালোবাসা। এই ভালোবাসা সীমা-পরিসীমা অতিক্রম করতে চাইলে কিশোর শৌর্যও নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করেছে। যা তার নয়, তা পাওয়ার জন্য হাত বাড়ায়নি। উপন্যাসে উপজেলা পরিষদ থেকে বাড়ি ফেরার পথে কিশোর শৌর্যের গভীর দীর্ঘশ্বাসেই মিশে আছে ভালোবাসা ও সংযমী মনোভাব। শৌর্য ও কলির মনে তৈরি হওয়া নির্ভরতা-বিশ্বাসকে সে নাম দিয়েছে কুটুম বন্ধু। অবশেষে বন্ধুত্বের বিশ্বাস থেকেই শৌর্য-কলিকে আশ্বস্ত করেছে। ভালোবাসা ও দায়িত্বজ্ঞানকে কথাকার বন্ধুত্বের বন্ধনে কালিমামুক্ত করেছেন।

মরুঝড় উপন্যাসে বাংলাদেশি কলির পাশাপাশি দুবাই কলি চরিত্রের দেখা মেলে। দুবাই কলি অপ্সরার মতো সুন্দরী। কাহিনির সূচনায় দুবাই কলি একরূপে পাঠকের সামনে উপস্থিত হলেও বন্দি রুস্তমের মুক্তির পরে তার স্বরূপ বদলে যায়। অর্থাৎ রুস্তমের সঙ্গে দেখা করার প্রবল ইচ্ছার যে নীল নকশা তা প্রথমাবস্থায় কামুক দুবাই কলিকে উপস্থাপন করে। পরবর্তীকালে সে স্বীকার করে তার এই নীল নকশার পেছনে ছিল রুস্তমের মানবিক সত্তার শুদ্ধতা যাচাইয়ের পরীক্ষা। সমালোচক মনে এই স্বীকারোক্তির সত্যতা প্রশ্নবিদ্ধ। অর্থাৎ শুধু শুদ্ধতা যাচাই নয় রুস্তমের প্রতি দুবাই কলির দুর্বলতাও ছিল। ঘটনা-দুর্ঘটনার অন্তঃস্থলে রুস্তমের প্রতি তার অধিকারবোধের প্রমাণ মেলে। আম্মিজানের সম্মুখে রুস্তম বিবাহিত শোনার পরেই দুবাই কলির মুখে ফুটে ওঠা অস্থিরতাই সে সত্যতার প্রমাণ দেয়।

দুবাই কলি রুস্তমের প্রতি দুর্বলতা, অধিকারবোধ ও মুগ্ধতার বিনিময়ে তাকে দুবাইয়ের মাটিতে প্রতিষ্ঠিত করেছে। উচ্চপদে কর্মসংস্থান করছে। এমনকি রুস্তমের স্ত্রীর কাছে দ্বিতীয় স্ত্রী হওয়ার অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছে। এই আবেদন বা আত্মিক চাওয়া এক মুহূর্তে সৃষ্টি হয়নি। প্রকৃতপক্ষে রুস্তমের প্রতি দুবাই কলির দুর্বলতা, ভালোলাগা ও ভালোবাসা অঙ্কুরিত হয়েছিল সিঁড়িঘরে লাল পতাকা উড়ানোর পূর্বেই। বাথরুমের লাইট জ্বালানোর কাজে ইলেকট্রিশিয়ান হিসেবে রুস্তমের বেডরুমে প্রবেশের পূর্বেই দুবাই কলির মনে পূর্বরাগের সৃষ্টি হয়েছে। রুস্তমের শাস্তির পরে সে পূর্বরাগ ক্রমাগত পরিপূর্ণ আস্থা ও ভালোবাসায় রূপ নিয়েছে।

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সম্পর্কে বলা হয়ে থাকে তাঁর নীতিবাদী সত্তার কাছে শিল্পীসত্তা পরাজিত হয়েছে। নীতিবাদী বঙ্কিমচন্দ্র বিষবৃক্ষ উপন্যাসের কুন্দনন্দিনী এবং কৃষ্ণকান্তের উইল উপন্যাসের রোহিণী চরিত্র দুটিকে হিন্দু ধর্মের নিয়ম লঙ্ঘন করে বিপথগামী হাওয়ার শাস্তি স্বরূপ মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন। তবে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার পূর্বে কুন্দ এবং রোহিণীকে জীবন রসের সুধা পাত্র হাতে ধরিয়ে তা পান করিয়েছেন। মরুঝড় উপন্যাসেও কথাশিল্পী মোহিত কামালের নীতিবাদী সত্তার প্রকাশ ঘটেছে। ধর্মীয় রীতি অমান্য করে দুবাই কলির সামান্য চারিত্রিক দুরাচারিতায় লেখক তাকে জীবন সংকটে ফেলেছেন। লেখক দুবাই কলির জীবনে ঘটে যাওয়া কলঙ্ককে খণ্ডন করেননি। তাকে কলঙ্কের সঙ্গী করেই পরবর্তী অনিশ্চিত সঙ্গীবিহীন শূন্য জীবন উপহার দিয়েছেন। উপন্যাসের শেষে জানা যায় কলঙ্কের কারণে দুবাই কলির বিয়ে ভেঙে যায়। বিয়ের প্রস্তাবটিও পঞ্চাশোর্ধ্ব বা ততোধিক বৃদ্ধ আমিরদের পক্ষ থেকেই আসে। দুবাই কলির অপরাধ বা পাপ কুন্দ বা রোহিণীর সমতুল্য নয় বলেই হয়তো লেখক তাকে মৃত্যুদণ্ড দেননি। এরূপ শাস্তি প্রদান করে বেঁচে থাকার সুযোগ দিয়েছেন। অর্থাৎ মোহিত কামালের লেখক সত্তার নীতিবাদী রূপটি উপন্যাসের কাহিনিতে স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। একথা নির্দ্বিধায় বলা যায় মরুঝড় উপন্যাসে লেখকের শিল্পীসত্তাকে ছাড়িয়ে নীতিবাদী সত্তার জয় ঘোষিত হয়েছে।

রুস্তমের মত প্রবাসীরা শুধুমাত্র পরিবারকে সুখী করতে তপ্ত মরুর বুকে কঠোর পরিশ্রমে নিয়োজিত থাকে। সেখানে ঘণ্টা চুক্তিতে কাজ হয়। সিসি ক্যামেরা নিয়ন্ত্রিত কর্মক্ষেত্রে সব সময় কর্তৃপক্ষের নজরদারি থাকে। এতটুকু অবসর বা অন্যমনস্ক হয়ে কাজে ফাঁকি দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। রয়েছে কঠোর আইনের শাসন।

ঔপন্যাসিক রুস্তমের স্ত্রী কলির মনোকথনের মাধ্যমে দেখিয়েছেন সবজি চাষ অর্থাৎ কচু বিক্রি ও হাঁস মুরগির খামার করে লাভবান হওয়া তথা আর্থিক উন্নয়ন সম্ভব। এই বোধের জাগরণের মাধ্যমে বোঝাতে চেয়েছেন দেশেই পরিশ্রমের পথ ধরে সফলতা লাভ করা যায়। তিনি প্রবাসজীবনকে নিরুৎসাহিত করেছেন। রুস্তমের মেধা, শ্রম, একনিষ্ঠতা, ধৈর্য এবং সাহসিকতার সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবেলার শক্তি এ চরিত্রটিকে বলিষ্ঠ করে তুলেছে। রুস্তমের মায়ের প্রতি অন্ধ বিশ্বাস তার জীবনকে ক্রমশ হতাশায় নিমজ্জিত করেছে। মরুজেলের কর্তৃত্বশীল কুফিয়ার বক্তব্য শোনার পরেই তার মনের পর্দা উন্মোচিত হওয়ায় দ্বিধাদ্বন্দ্ব ও টানাপোড়েন দূর হয়েছে। এমনকি মরুজেলে থাকা অবস্থাতেও রুস্তমের সততা ও মানবিকতার পরিচয় পাওয়া যায়। মরুঝড় উপন্যাসের রুস্তম চরিত্রটি বাংলাসাহিত্যের ইতিহাসে শুদ্ধতার প্রতীক; এক অনন্য চরিত্র।

মরুঝড় উপন্যাসে অনাকাক্সিক্ষতভাবে রুস্তমের স্ত্রী কলি এবং দুবাই কলির নামের সাদৃশ্য প্রবাসে তার জীবন সঙ্কটের কারণ হয়েছে। মোহিত কামালের একাধিক গল্প যেমন মাটির ঘ্রাণ, ভিখারিনী এবং লুইপা’র কালসাপ উপন্যাসের প্লটে এরূপ একই নামে একাধিক চরিত্রের উপস্থিতি লক্ষ করা যায়। বিগত গল্প ও উপন্যাসে একই নামের একাধিক চরিত্রের উপস্থিতি থাকলেও তারা কাহিনিতে জটিলতা সৃষ্টি করেনি। বরং চরিত্রগুলো একে অপরের সঙ্গে মিশে মিতালী পেতেছে। তাদের চেতন ও অবচেতন মন একিভূত হয়ে কাল্পনিক জগতে বিচড়ণ করেছে। কাহিনিতে একই নাম বিভিন্ন ইজম বা মতবাদ যেমন পরাবাস্তববাদ, সামাজিক জাদুবাস্তববাদ এর প্রকাশ ঘটিয়েছে। মরুঝড় উপন্যাসে কলি নামে দুটি চরিত্রের উপস্থিতি কোন মতবাদ প্রকাশ করার জন্য নয়, কাহিনির জটিলতার প্রয়োজনে সৃষ্টি হয়েছে। এদিক বিচারে মরুঝড় উপন্যাসটি লেখকের স্বতন্ত্র ভাবনার বহিঃপ্রকাশ।

রুস্তম মরুঝড় উপন্যাসের কেন্দ্রীয় চরিত্র এবং নায়ক। রুস্তম তার সততা, কর্মনিষ্ঠা, আত্মমর্যাদাবোধ, স্বাতন্ত্র্যতা এবং দেশপ্রেমের কারণে সাধারণ শ্রমিক অপেক্ষা দ্রুত কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে। ফলশ্রুতিতে খুব দ্রুত তার ভাগ্যোন্নয়ন ঘটেছে। সৎ চরিত্রের অধিকারী রুস্তম প্রবাস জীবনে স্ত্রী কলির জন্য তার হৃদয়ে গভীর শূন্যতা অনুভব করেছে। স্থিরবুদ্ধিমত্তা এ চরিত্রের অনন্য একটি বৈশিষ্ট্য। দুবাই কলির সঙ্গে ফোনে কথা বলতে বাধ্য হয়ে শুধু ফোন রিসিভ করেছে। নিজে থেকে কখনো কল না করায় তার চারিত্রিক দৃঢ়তা স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। এছাড়াও বেডরুমে দুবাই কলির ঘনিষ্ঠ হওয়ার ইঙ্গিতে সাড়া না দিয়ে বাথরুমে লাইট জ্বালানোর কাজে নিয়োজিত থেকেছে। দুবাই কলির মতো অপরূপ সুন্দরি নারীর বহুমুখী ইঙ্গিতে তার মনে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব এবং যে টানাপোড়ন উপস্থিত হয়েছে তার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল স্ত্রী কলি ও কিশোর শৌর্যের কাল্পনিক প্রণয়।

দুবাই কলির আচরণের সে স্ত্রী কলিকেই মিলানোর চেষ্টা করেছে। মায়ের মুখ থেকে শোনা স্ত্রী সম্পর্কিত অপবাদে রুস্তমের মন জুড়ে মরুঝড়-এর মতো ঝড় উঠেছে। মরু শুষ্ক হৃদয়ের ঝড় রুস্তমের দুচোখে সীমাহীন শূন্যতার সৃষ্টি করেছে। দুবাই কলির সঙ্গে অনবরত স্ত্রী কলিকে মিলিয়ে দেখার প্রবণতাও এই শূন্যতারই ফল।

দুবাই কলির মাধ্যমে দুবাইয়ের নারীদের সামাজিক অবস্থানটি স্পষ্ট হয়ে ওঠে। আরব বিশ্বের নারীরা বর্তমানের প্রেক্ষাপটেও আত্মমত প্রদানে অক্ষম। সেখানে এই একবিংশ শতকেও নারীকে শুধুমাত্র ভোগ্যপণ্য মনে করা হয়। বাল্যবিবাহ প্রথা অর্থাৎ কিশোরী কন্যা ঋতুবতী হওয়া মাত্রই তার বিয়ের প্রথা প্রচলিত রয়েছে। অসম বিবাহ অর্থাৎ কিশোরী কন্যার সঙ্গে বৃদ্ধ আমিরের বিয়ে কোনো অস্বাভাবিক ব্যাপার নয়। এমনকি বয়স্ক আমিরদের ঘরে একাধিক স্ত্রী থাকা সত্ত্বেও কিশোরী কন্যার অভিভাবক স্বাচ্ছন্দ্যে বিয়ের আয়োজন করেন। এ যেন নারীর পরিচয়ে শুধুমাত্র বিয়ের তকমা লাগানোর আয়োজন। নারীর মনের চাওয়া কিংবা অপছন্দ তার বুকের মাঝে গুমড়ে কেঁদেছে। দুবাই কলি ও তার কাজিন বিদ্রোহী নারী চরিত্র। দুবাই কলির আচরণ ও পোশাক-পরিচ্ছদে ফুটে উঠেছে নিয়ম ভাঙার দুঃসাহস। তার কাজিন বয়স্ক আমিরকে স্বামীত্বে বরণ না করে অন্য এক বাংলাদেশি শ্রমিক রুস্তমের সঙ্গে পালিয়ে বাংলাদেশে পাড়ি জমিয়েছে। দুবাইয়ে নিয়মের ব্যত্যয় ঘটানো নারীরা কঠিন শাস্তির সম্মুখীন হয়। এমন অমানবিক বর্ণনাও উপন্যাসের কাহিনিতে উঠে এসেছে।

মরুঝড় উপন্যাসের মাধ্যমে পাঠক সমালোচক মরুভূমির জীবনাচরণ সম্পর্কিত দুজ্ঞেয় রহস্য ভেদ করতে সক্ষম হন। মরুজেলের অমানবিক বর্ণনায় বেদনার্ত পাঠক অধিক আগ্রহে রুস্তমের মুক্তির আশায় অপেক্ষা করে। প্রারম্ভেই জানা যায় দুবাইয়ের উন্নতির মূলে রয়েছে কড়া আইনের শাসন ও নিরলস পরিশ্রম। এছাড়াও দুবাই কলির মাধ্যমে আরববিশ্বের আমির শেখদের বসতবাড়ির বর্ণনা, বিলাসী জীবন, অন্দরমহলের কড়া নিরাপত্তা, নারীদের পোশাক পরিচ্ছদসহ তাদের সৌন্দর্য সম্পর্কে অবহিত হওয়া যায়। রুস্তম তার অসংখ্য সদগুণের সমন্বয়ে প্রবাসে বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করেছে। পক্ষান্তরে বিপুলসংখ্যক অবৈধ অভিবাসী প্রবাসীদের করুণ চিত্র প্রকাশিত হয়েছে সাদী মোহাম্মদ ও নোমান চরিত্রের মাধ্যমে। কাহিনির শেষাংশে রুস্তম দুবাই কলির ব্যবসা-প্রতিষ্ঠানে উচ্চপদে চাকুরি পেয়ে স্ত্রী কলিকে দুবাই নিয়ে যায়। উপন্যাসে স্ত্রী কলির বিরহের অবসানের পাশাপাশি দুবাই কলির বিরহী হৃদয়ের ক্ষত ও হাহাকার ধ্বনিত হয়েছে। সমুদ্রের মাঝে খড়কুটো আঁকড়ে ধরার মতো দুবাই কলিও শেষ প্রত্যাশায় স্ত্রী কলির কাছে রুস্তমের ভাগ চায়। স্ত্রী কলি বাঙালি নারী। সকল সুখ-সম্পদের বিনিময়েও স্বামীর ভাগ দিতে অস্বীকৃতি জানায়।

মরুভূমি ও সেখানে কর্মরত প্রবাসী বাঙালি শ্রমিকদের জীবন কেন্দ্রিক মরুঝড় উপন্যাস প্রকাশের পূর্বে এ বিষয় কেন্দ্রিক কোনো উপন্যাস রচিত হয়নি। মরুঝড় উপন্যাস বাংলা সাহিত্যের এক ভিন্ন মাত্রার সংযোজন। এ উপন্যাসে কাহিনি, চরিত্র সৃজন, চরিত্রগুলোর মনস্তাত্ত্বিক বিশ্লেষণসহ লেখকের শিল্প নির্মাণের দক্ষতা ও নীতিবোধের সমন্বয় ঘটেছে। উপন্যাসটির নিজস্ব গঠন-কৌশল এবং বিষয়বস্তুর স্বাতন্ত্র্যতার নিরিখে হয়তো হারিয়ে যাবে না। বাংলা সাহিত্যের আসরে স্থায়ী আসন করে নেবে।




আলোচক পরিচিতি:

জাকিয়া রহমান

সাহিত্য সমালোচক।প্রভাষক

রাজশাহীতে থাকেন।



কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন