বৃহস্পতিবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২২

গল্পপাঠ ।। কার্তিক-অঘ্রান।। ১৪২৮ বঙ্গাব্দ।। নভেম্বর-ডিসেম্বর।। ২০২১ খ্রিস্টাব্দ।। সংখ্যা ৮০

গল্পপাঠের অশীতিতম সংখ্যা


সময়ের সাগরে আমরা নিমজ্জিত, কিন্তু জলের মতো তা আমাদের গায়ে লাগে না, কোনো ধরণের বাধা ছাড়াই প্রবাহিত হতে থাকে যতক্ষণ না সেকেন্ড ঘণ্টা পার হয়ে বছর কেটে যায়। সময়কে কখনই ধরে রাখা যায় না, এমনকী জগতের সবকিছু স্তব্ধ হলেও বস্তুর একটা কম্পন থেকে যায়, সেই কম্পন সময়কে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়। বিখ্যাত পদার্থবিদ আর্চিবাল্ড হুইলার বলেছিলেন, সময় হলো সবকিছু একসাথে যাতে সংঘটিত না হয় সেজন্য প্রকৃতির একটি উপায়। করোনার প্রকোপের মধ্যে আমাদের দুটি বছর চলে গেল, আমরা বুঝতে পারছিলাম এই সময়টা চলে যাচ্ছে, কিন্তু তাকে ধরে রাখা যাচ্ছে না। মহাকালের কাছে আমরা সমর্পিত, সেই কাল নৈর্ব্যক্তিক, অমোঘ। তার মধ্যে নিকটজনের অসুস্থতা, বন্ধুর মৃত্যু সবকিছুকে অর্থহীন করে তুলতে পারে। দু বছর আগে কে ভেবেছিল ২০২২ সনের জানুয়ারিতেও আমাদের স্বেচ্ছা-নির্বাসনে যেতে হবে, ইচ্ছামত ভ্রমণ চলবে না। এই দুটি বছর পৃথিবীকে আমাদের নতুন চোখে দেখতে হলো। এই সময়টি মহাযুদ্ধের মতনই, গল্পপাঠের পাঠকদের কাছে অনুরোধ সময়টিকে আপনার দিনপঞ্জীতে ধরে রাখার চেষ্টা করুন, পৃথিবীর ইতিহাসের এটি একটি সন্ধিক্ষণ, সেটির যেমন একটি আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট আছে তেমনই আছে ব্যক্তিগত মূল্যায়ণ। মনোবৈকল্য এড়াতে, জীবনকে অর্থ দিতে, নিয়মিত লেখা একটি উপায় হতে পারে।

গল্পপাঠের এটি হলো অশীতিতম সংখ্যা। এতে আপনাদের আমন্ত্রণ জানাই। পাঠক ও লেখকের সম্মিলিত উৎসাহে গল্পপাঠ বহু বছর ধরে তার ক্রমান্বয়তা বজায় রাখতে পেরেছে। শুধু এর বর্তমান ও অতীতের সংখ্যাগুলিই নয়, গল্পপাঠের আর্কাইভ পাঠক ও লেখক সবারই চাহিদা মেটাবে এই আমাদের আশা। ২০২২ - নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানবেন।

বাংলাদেশের কথাসাহিত্যিক পাপড়ি রহমান ও অস্ট্রেলিয়াপ্রবাসী ভারতীয় কথাসাহিত্যিক ইন্দ্রাণী দত্তের দীর্ঘসাক্ষাৎকার গল্পপাঠে প্রকাশিত হলো। সাক্ষাৎকার দুটি নিয়েছেন গল্পপাঠের অন্যতম সম্পাদক এমদাদ রহমান, রুমা মোদক এবং নাহার তৃণা। এ দুটি সাক্ষাৎকারেই এ সময়ের দুজন ভিন্নধারার কথাসাহিত্যিক তাঁদের লেখন-জগৎকে অকপটে মেলে ধরেছেন। যেকোনো লেখকপাঠকই এই সাক্ষাৎকার দুটি থেকে ঋদ্ধ হবেন।
 
বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের অন্যতম অভিভাবক হাসান আজিজুল হক কে আমরা হারালাম ২০২১ এর ১৫ নভেম্বর। তিনি ছিলেন বাংলা সাহিত্যের অন্যতম একজন গল্পকার। উপন্যাস, নাটক ও বিভিন্ন বিষয়ে বিশ্লেষণধর্মী রচনাতেও তিনি ছিলেন সিদ্ধহস্ত। দেশভাগের অভিঘাত নিয়ে তাঁর গল্প "আত্মজা ও একটি করবী গাছ" শুধু বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে নয় বিশ্বসাহিত্যের ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় সৃষ্টি বলে মনে করি। একই ভাবে তাঁর কালজয়ী উপন্যাস "আগুন পাখি"র কথাও বলা যায়। একবার এক সাক্ষাৎকারে শ্রদ্ধেয় হাসান আজিজুল হক দেশভাগ বিষয়ে তাঁর হৃদয় ক্ষরণের কথা উল্লেখের পাশাপাশি বলেন : "ইতিহাসে যা কিছু হয়েছে তা মেনে নিতে হয়। চিরকাল বলে যাবো, যে বাংলাদেশ দেখছি তা আমার মন-প্রাণ অধিকার করে আছে।" জন্মালে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতেই হবে। এই ধ্রব সত্যিটিকে না মেনে উপায় নেই। হাসান আজিজুল হককে সেই সত্যের টানে চলে যেতে হয়েছে। কিন্তু আমরা এও জানি 'চলে যাওয়া মানে প্রস্থান নয়'। হাসান আজিজুল হক তাঁর সৃষ্টির ভেতর বেঁচে থাকবেন। তাঁর সৃষ্টি আরো বহুকাল পাঠকের মন-প্রাণ অধিকার করে থাকবে। গল্পপাঠের এবারের সংখ্যায় শ্রদ্ধেয় হাসান আজিজুল হক স্মরণে শ্যামল গঙ্গোপাধ্যায়ের একটি গদ্য. কুলদা রায়ের নেওয়া একটি সাক্ষাৎকার, রুমা মোদকের একটি প্রবন্ধ প্রকাশ করা হলো।
 

অনুবাদ – বাদানুবাদ   

এ সংখ্যায় সুচরিত চৌধুরীর একটি গল্প আছে স্বাতীর চিঠি নামে। গল্পটির ভাষা আমাদের এক টানে নিয়ে যাবে স্বাতীদির ভালবাসামাখা এক রহস্যময় যবনিকায়। ছোট থেকে ছোটতর গল্পটির ঘোর কাটবে না, আমরা বলব এ ভাবেও লেখা যায়, আমরা সবাই খুঁজব আমাদের স্বাতী সেনকে। এই গল্পটিকে কি অনুবাদ করা যাবে? কীভাবে অনুবাদ করা যাবে ‘কালো কালির কচঙ্গনে স্বাতী সেনের রূপের সাজন’ কিংবা ‘মনের দেয়ালীতে স্বাতী সেনের বিশিখা প্রদীপ’? অনেকেই যথার্থ অনুবাদ হয়নি তাই বাংলা সাহিত্যকে বিশ্বের আঙ্গিনায় পৌঁছানো যায়নি বলে আক্ষেপ করেন। গল্পপাঠের এই সংখ্যায় দেবর্ষি সারগীর গল্প বিশ্লেষণ করতে গিয়ে বিপ্লব বিশ্বাস বলছেন, ‘অথচ বাংলা সাহিত্যের অজস্র নোবেল - সম্ভাবনাময় সম্পদকে অনুবাদের মাধ্যমে পশ্চিমে ছড়িয়ে দিতে সক্ষম হইনি।’ এ বিষয়ে কোনো সন্দেহেই নেই গত এক শ বছরের বাংলা ছোট গল্প, উপন্যাস ও কবিতা বিশ্বমানের। কিন্তু সমস্যাটা শুধু অনুবাদের নয়, সমস্যাটা হল একটি সংস্কৃতির প্রতি বিশ্বের মানুষের আগ্রহ জন্মানো। ইংরেজি বা জার্মান থেকে বাংলায় ভালো অনুবাদের জন্য আমরা যেমন একজন ইংরেজ বা জার্মানভাষীর ওপর নির্ভর করতে পারি না, তেমনই বাংলা থেকে ইংরেজি বা জার্মান ভাষায় অনুবাদের জন্য আমরা মূলত বাংলাভাষীর ওপর নির্ভর করতে পারি না। এজন্য প্রয়োজন বিদেশী মানুষের বাংলাভাষা ও সংস্কৃতির প্রতি আগ্রহ জন্মানো। শুধুমাত্র অনুবাদ প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই বাংলা সাহিত্যকে বিশ্বের দরবারে পৌঁছে দেয়া যাবে না। যতক্ষণ না বিশ্বের মানুষ এই অঞ্চলের প্রতি আগ্রহশীল হবে ততক্ষণ সেই অনুবাদের কোনো পাঠক হবে না। রবীন্দ্রনাথ বিশ্বের মানুষের বাংলার প্রতি যে আগ্রহ জন্ম দিয়েছিলেন আজ তা প্রায় স্তিমিত।

এখানে আমি একটি বিতর্কিত প্রসঙ্গের অবতারণা করি। বিদেশী ভাষাভাষীদের মূল বাংলা থেকে অনুবাদের আর একটি বড় বাধা হচ্ছে আঞ্চলিক ভাষার ব্যবহার। নিঃসন্দেহে আঞ্চলিক ভাষা আমাদের গদ্য সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছে। কিন্তু একজন অবাংলাভাষী যে প্রমিত বাংলা শিখেছে – তার জন্য – এই সংখ্যার রুমা মোদকের ‘পিতৃসত্য’ গল্পের সামান্য আঞ্চলিকতাও (‘এভাবে ধাক্কাটা দিলা যেন ঘরের ছাদ ভাইঙ্গা মাথায় পড়তেছে, কথাটা বলতেই মুখ ঝামটায় শামীমা, যা না একখান ঘর, মাথায় পড়লে মাথাও শরম পাইবো।’) একটা বিরাট বাধা মনে হবে। একটি প্রমিত ভাষাকাঠামোর মধ্যে বিভিন্ন আঞ্চলিক ভাষার ব্যবহার শুধুমাত্র যে বিদেশীদের জন্য বাংলাকে অনতিক্রম্য করে দেয় তা নয়, এমনকী নব্য ইংরেজী মাধ্যমে শিক্ষিত প্রজন্মকে গোলকধাঁধায় ফেলে দেয়।

গল্পপাঠের এই সংখ্যায়ও বেশ কয়েকটি অনুবাদ যাচ্ছে, মিশরিয় সাহিত্যিক নাগিব মাহফুজের কয়েকটি গল্প এর মধ্যে রয়েছে। বাংলা ভাষাতে অনুবাদ নিয়ে এখন দেশে-বিদেশে যথেষ্ট উৎসাহ দেখা দিচ্ছে, কিন্তু বিষয় হিসেবে অনুবাদ তত্ত্ব বাংলায় এখনো সেরকমভাবে প্রতিষ্ঠা পায়নি। সেই কবে ফরাসি Étienne Dolet, ১৫৪০ খ্রীষ্টাব্দে, বলে গিয়েছিলেন অনুবাদককে যে ভাষায় অনূদিত হচ্ছে (লক্ষ্য) এবং যে ভাষা থেকে হচ্ছে (উৎস) এই দুটোতেই সমানভাবে দক্ষ হতে হবে। কিন্তু এর সাথে জুড়ে দিয়েছিলেন আর একটি শর্ত – যে বিষয়টি নিয়ে কথা হচ্ছে তাতেও অনুবাদককে হতে হবে বিজ্ঞ। এই ব্যাপারে Dolet হয়তো আরো কিছু লিখে যেতে পারতেন কিন্তু ১৫৪৬ খ্রীষ্টাব্দে, তাঁর ৩৭তম জন্মদিনে, ধর্মনিন্দার অপরাধে তাঁর লিখিত বইসহ তাঁকে পুড়িয়ে তাঁর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হলো। এই দণ্ডের হোতা ছিল প্যারিসের বিখ্যাত সোরবান বিশ্ববিদ্যালয়ের ধর্ম অনুষদ, বিচারালয় ও তথাকথিত ধর্মদ্রোহিতা বন্ধ করার কুখ্যাত প্রতিষ্ঠান ‘ইনকুইজিশন’।

এরপরে, গত ৫০০ বছর ধরে অনুবাদ তত্ত্ব যেভাবেই অগ্রসর হোক না কেন, Dolet-এর তিনটি শর্ত থেকে সে খুব একটা দূরে যেতে পারে নি। আমরা মোটা ভাষায় অনেক সময় বলি অনুবাদ হয় আক্ষরিক হয়, নয় হয় ভাবানুবাদ। বোঝাই যাচ্ছে এরকম মোটা দাগের বিভাগের নিচে অনেক সূক্ষ্ম বোধ ও বিচার কাজ করে। যেমন আমরা বলি অনুবাদকে বিশ্বস্ত হতে হবে, অর্থাৎ উৎসের কোনো অর্থ বদলানো যাবে না, সেখানে কোনো অপসারণ বা বাড়তি সংযোজন করা যাবে না। লেখকের মূল স্টাইলকে অক্ষুণ্ণ রাখতে হবে, তবে সেটা করতে গিয়ে যদি ভাষাটি জবরজং হয়ে যায় তবে এমন বুদ্ধিমত্তার সাথে সেটিকে বদলাতে হবে যাতে স্বতঃস্ফূর্ততা নষ্ট না হয়। সর্বোপরি লেখাটিকে পড়ে যেন মনে না হয় এটি কোনো রোবট অনুবাদ করেছে।

আমাদের প্রজন্মের অনেকেই ছোটবেলায় বাংলায় রুশ থেকে অনুবাদ পড়ে বড় হয়েছি। সেই সময়ে যাঁরা অনুবাদ করতেন তাঁদের হাত এমনই দক্ষ ছিল যে, কখনো মনে হয়নি যে ভাষা কোথাও আটকে যাচ্ছে। এখানে ছোট করে একটা উদাহরণ দিলে মন্দ হয় না। আন্তন চেখভের একটি গল্প – এর ইংরেজি নাম হলো The Lady with the Dog, রুশ নাম হলো Дама с собачкой (দামা স সাবাচকই)। গল্পটির নাম ইংরেজিতে আক্ষরিক অনুবাদ করা গেলেও বাংলায় সেটি করা গেল না, বাংলায় নামটি হলো ‘কুকুরসঙ্গী মহিলা’। ইংরেজিতে প্রথম বাক্যটি হল People were telling one another that a newcomer had been seen on the promenade — a lady with a dog। এটি মূল রুশকে (Говорили, что на набережной появилось новое лицо: дама с собачкой) মোটামুটি যথার্থভাবে অনুসরণ করেছে যদিও রুশে ‘were telling’-এর (Говорили, গাভারিলি) কর্তা অনুপস্থিত। এই বাক্যটিকে বাংলায় তিনভাগ করে ফেলা হলো – ‘কথাটা সবাই বলাবলি করছিল। সমুদ্রের তীরে একজন নবাগতাকে দেখা গেছে। কুকুরসমেত একজন মহিলা।’ অনুবাদক লিখতে পারতেন - ‘কথাটা সবাই বলাবলি করছিল যে, সমুদ্রের তীরে একজন নবাগতাকে দেখা গেছে – কুকুরসমেত একজন মহিলা।’ কিন্তু ‘যে’ কথাটি পাঠকের স্বতঃস্ফূর্ত পঠনকে বাধাগ্রস্ত করত সেটা অনুবাদক বুঝেছিলেন। আমি বলব তিনটি বাক্যে ভাগ করা সত্ত্বেও অনুবাদক একদিকে অর্থগত, অন্যদিকে লেখকের স্টাইলের প্রতিও বিশ্বস্ত থেকেছেন। তবে জটিল বাক্য অনেক লেখকের ট্রেডমার্ক, সেই বোধটিও অনেক সময় পাঠকের কাছে পৌঁছে দেয়া লেখকের দায়িত্ব।

গল্পটির শিরোনাম, আক্ষরিকভাবে ভাবলে, ‘কুকুরসমেত একজন মহিলা’ বা ‘কুকুরসহ একজন মহিলা’ হওয়া উচিত ছিল। কিন্তু এখানে অনুবাদকের নান্দনিকবোধ ‘সমেত’ বা ‘সহ’ কথাটির বদলে ‘সঙ্গী’ শব্দটি পছন্দ করেছে। এখানে বাংলা ভাষার ব্যবহারকারিদের সংস্কৃতি একটা বড় ভূমিকা পালন করছে। রুশ বা ইংরেজীতে ‘কুকুরসহ’ বলতে বাধা নেই, কিন্তু কুকুরকে শুধু পোষা প্রাণী হিসেবে নয়, সর্বক্ষণের সঙ্গী হিসেবে কল্পনা করা বঙ্গদেশে গৃহীত ছিল না (এখনো হয়তো নেই), তাই অনুবাদক গল্পটির নাম ‘কুকুরসঙ্গী মহিলা’ দিয়ে মূল রুশের ধনাত্মক ভাবটি বজায় রেখেছেন।  

অনুবাদ নিয়ে আরো অনেক কথা বলার আশা রাখি পরে। আপাতত পাঠকের আর সময় না নিয়ে বলি গল্পপাঠ বেশ কয়েকটি অনুবাদ প্রজেক্টে হাত দিয়েছে, আশা করা যাচ্ছে পৃথিবীর নানা প্রান্তের অজানা গল্পকে এই উদ্যোগ বাংলাভাষায় নিয়ে আসতে পারবে। 

- দীপেন ভট্টাচার্য

হাসান আজিজুল হকের ১৮টি  গল্প:
        ১. আমৃত্যু আজীবন, ২. স্বপ্নেরা দারুণ হিংস্র, ৩. মা-মেয়ের সংসার, ৪. পরবাস, ৫. উত্তরবসন্তে, ৬. সারাদুপুর, ৭. পাবলিক সার্ভেন্ট, ৮. খাঁচা, ৯. জননী, ১০. মন তার শঙ্খিনী, ১১. ঘরগেরস্থি, ১২. শকুন, ১৩. নামহীন গোত্রহীন, ১৪. পাতালে হাসপাতালে, ১৫. পরবাসী, ১৬. আত্মজা ও একটি করবী গাছ, ১৭. রেপ, ১৮. সাক্ষাৎকার
কয়েকটি আয়োজন--
বাংলাদেশের কথাসাহিত্যিক পাপড়ি রহমান দীর্ঘদিন ধরে লিখছেন। বয়ন , পালাটিয়া, নদীধারা আবাসিক এলাকা নামে তিনটি ভীন্নধর্মী উপন্যাস লিখেছেন। ছোটো গল্পকারকার হিসেবেও তাঁর দক্ষতা ঈর্ষণীয়। গল্পপাঠের অন্যতম সম্পাদক এমদাদ রহমান প্যারিস থেকে ও হবিগঞ্জ থেকে রুমা মোদক প্রায় সাত মাস ধরে অন্তর্জালের মাধ্যমে পাপড়ি রহমানের দীর্ঘতম একটি সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেছেন। 
এমদাদ রহমান ও রুমা মোদক
আনন্দময়ী মজুমদারের ব্যক্তিগত জার্নাল
দুই-পয়সা শিরোনামে কালানুক্রমিক জার্নাল আকারের লেখা হত। লেখাগুলি নিজের সঙ্গে নিজের সংলাপ; অভিজ্ঞতা ও ভাবনাচিন্তার সঙ্গে নিজের বোঝাপড়া। হয়ত কিছু লেখার ক্ষেত্রে আমি এখন আর লেখক নই, পাঠক শুধু, যে-মানুষ লিখেছে, পাঠকের মতো, আমিও তাকে বাইরে দাঁড়িয়ে দেখি। উপস্থিত কালে সেই আবেগকে ধারণ করি, কিন্তু ভেসে যাই না, ধারণ করি, যেমন ধারণ করি একটা কাছের মানুষের লেখনী, যে আমি নই। লেখাগুলির নাম রাখা হচ্ছে `প্রেরণার দুই কিস্তি'। প্রেরণা নামটি উঠিয়ে রেখেছিলাম প্রিয় ঝুড়ির মধ্যে। এখানে যে সত্তা এই লেখা লিখেছে তাকে হয়ত এই নামটা দেয়া যায়, ভেবে ঝুড়ি থেকে নামটা বের করলাম। এতদিন পরও দেখছি নামটার মধ্যে শ্বাস বইছে!
রঞ্জনা ব্যানার্জীর গল্প :




ইন্দ্রাণী দত্ত আড়ালের লেখক। ফেসবুকেও নেই। জন্ম কোলকাতায়। অস্ট্রেলিয়ায় থাকেন। পেশায় বিজ্ঞানী। তাঁর একটি মাত্র গল্পের বই প্রকাশিত হয়েছে। লেখেন কয়েকটি ওয়েবম্যাগাজিনে। কিন্তু লেখার পরিণত স্বভাব দেখে মনে হয় তিনি যেন গত জন্ম থেকেই লিখছেন। লিখছেন হীরকখণ্ডের মতো এক একটি গল্প। তার শব্দ, বাক্য আর আখ্যান যেন মৃদু মানুষের কথকতা। আবার পাঠকের জন্য লেখাটি একটি ফাঁদও বটে। পাঠকও ফাঁদে পড়ে গল্পের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে গল্পটিতে অংশ নিতে বাধ্য হন। পাঠকও যেন গল্পটির আরেকজন লেখক হয়ে ওঠেন।

ইন্দ্রাণী দত্তের একটি দীর্ঘ সাক্ষাৎকার নিয়েছেন গল্পপাঠের অন্যতম সম্পাদক কথাসাহিত্যিক নাহার তৃণা। দুজনের আলাপচারিতা লেখনের অন্তর্জগতের অসামান্য দলিল হয়ে উঠেছে। এটা যে কোনো লেখকপাঠকের জন্যই অবশ্যপাঠ্য হয়ে উঠেছে।
গ্রন্থণা-সাক্ষাৎকারগ্রহণে নাহার তৃণা
ইন্দ্রাণী দত্তের পাঁচটি গল্প:

আরবি গল্প
আরব বিশ্বের সাহিত্য: উত্তরণ ও প্রকৃতি

আরব বিশ্বের সাহিত্য বলতে আরবী ভাষায় রচিত উপন্যাস, ছোটগল্প এবং কবিতাকে বোঝায়। যদিও আরবী সাহিত্য মূলত পঞ্চম শতাব্দীতে শুরু হয়েছিল, কিন্তু ইসলামের স্বর্ণযুগে, অর্থাৎ অষ্টম শতাব্দী থেকে চতুর্দশ শতাব্দী পর্যন্ত, ব্যাপক সমৃদ্ধি লাভ করে। উত্তরণের সেই ধারা আধুনিক কালের আরব বিশ্বের অধিবাসী এবং অভিবাসী ও নির্বাসিত কথাসাহিত্যিক এবং কবিদের মধ্যে চলমান রয়েছে। যদিও বিশ্ব নন্দিত সাহিত্য পুরস্কারের, যেমন নোবেল এবং ম্যান বুকার, তালিকায় হাতে গোণা কয়েকজন সাহিত্যিক রয়েছেন, তবে অনেকেই স্বদেশে এবং আন্তর্জাতিক মহলে সুনাম কুড়িয়েছেন।

বর্তমানে তথ্য প্রযুক্তির কল্যাণে স্বদেশী পাঠকের কাছে আরবী সাহিত্যকে পরিচয় করার জন্য বিভিন্ন সাহিত্য সংকলন, ম্যাগাজিন, জার্ণাল এবং ওয়েবম্যাগের ভূমিকা অপরিসীম। অন্যদিকে বিভিন্ন পুরস্কারের, যেমন ‘ইন্টারন্যাশনাল প্রাইজ ফর আরব ফিকশন’ (যা আন্তর্জাতিক সাহিত্যাঙ্গণে ‘অ্যারাবিক বুকার প্রাইজ’ হিসাবে অত্যন্ত পরিচিত) এবং ‘দ্য আরব লিটারেচার প্রাইজ’, ভূমিকা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। এ কথা সত্যি যে, প্রাচাত্য ও প্রাচ্যের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে আরব সাহিত্য আধুনিকতার পথ ধরে এগিয়ে যাচ্ছে এবং আরবী সাহিত্যকে আন্তর্জাতিক মহলে তুলে ধরছে।

সমকালীন আরবী সাহিত্যের বিশেষত্ব হল অত্যন্ত উচ্চস্তরের বিদ্রূপ সাহিত্য, অস্তিত্ববাদ এবং আত্মপরিচয়ের আলোচনা। অনেক আরব দেশের, যেমন ফিলিস্তিনি, সিরিয়া, লেবানন এবং ইরাক, সাহিত্য একটি সমগ্র নির্বাসিত জাতির গল্প, যেখানে শরণার্থী, জোর পূর্বক স্থানচ্যুতি, উৎখাত, বিভাজন, রাষ্ট্রহীনতা, ক্ষতি, মানসিক যন্ত্রণা, ট্র্যাজেডি, ধ্বংসাবশেষ এবং নীরবতার মতো বিভিন্ন বিষয় স্থান পেয়েছে। অন্যান্য আরব দেশে এমন পরিস্থিতি বা পরিবেশ দেখা যায় না। তাই বলা যায়, আরব বিশ্বের ছোটগল্পের, এমনকি উপন্যাস ও কবিতার মধ্যেও, রয়েছে বৈচিত্র্য।--ফজল হাসান
নাগিব মাহফুজের দীর্ঘ সাক্ষাৎকার
অনুবাদক: উৎপল দাশগুপ্ত
 
নাগিব মাহফুজ: স্থান-কাল
অনুবাদক : এলহাম হোসেন

অনুবাদক: বিপ্লব বিশ্বাস
 
অনুবাদক: নাহার তৃণা
 
অনুবাদক: মোহাম্মদ আসাদুল্লাহ
 
অনুবাদক: রঞ্জনা ব্যানার্জী
 
অনুবাদক: অমিতাভ চক্রবর্ত্তী
 
 অনুবাদক: ফজল হাসান

 অনুবাদক: ফজল হাসান

অনুবাদক: সুদেষ্ণা দাশগুপ্ত 
 
অনুবাদক: ফারহানা আনন্দময়ী

অনুবাদক: বেগম জাহান আরা

অনুবাদক: মনিজা রহমান
অনুবাদক: উৎপল দাশগুপ্ত




শাহাব আহমেদ'এর ধারাবাহিক উপন্যাস


গদ্য

 
মার্গারেট মিচেলের ধারাবাহিক উপন্যাস: যেদিন গেছে ভেসে- পর্ব ২৬ 
 
আলী নূরের ধারাবাহিক স্মৃতিকথা: তুচ্ছ দিনের গান: পর্ব- ১৩-১৫


পাঠপ্রতিক্রিয়া

কুলদা রায়ের ধারাবাহিক উপন্যাস :