রবিবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৭

কাজুও ইশিগুরোর একটি চিঠি: প্রাসঙ্গিক কথা

ফজল হাসান

সাহিত্যিক জীবনের শুরুতে অন্য সব কবি-সাহিত্যিকের মতো নোবেল পুরস্কার বিজয়ী জাপানী বংশোদ্ভূত বৃটিশ কথাসাহিত্যিক কাজুও ইশিগুরোও লেখা প্রকাশের জন্য সম্পাদকের কাছে চিঠি লিখেছিলেন ।
বৃটিশ লেখক এবং পন্ডিত স্যার ম্যালকম স্ট্যানলি ব্র্যাডবেরীর (১৯৩২-২০০০) অনুরোধে তিনি তাঁর লেখা ছোটগল্প ‘গেটিং পয়জনড্’ প্রকাশের জন্য ১৯৭৯ সালের ৬ ডিসেম্বর এমনই একটি চিঠি লিখেছিলেন বিখ্যাত বৃটিশ সাহিত্য ম্যাগজিন ‘গ্রান্টা’-র সম্পাদক বিল বুফোর্ডের কাছে । সেই সময় ইশিগুরো ইউনিভার্সিটি অফ ইষ্ট এঙ্গলিয়ার ‘ক্রিয়েটিভ রাইটিং’-র মাষ্টার ডিগ্রীর ছাত্র ছিলেন । যাহোক, কোন কারণে গল্পটি ‘গ্রান্টা’-য় প্রকাশিত হয়নি । তবে ১৯৮১ সালে সেই গল্প এবং অন্য দু’টো গল্প (‘এ স্ট্রেঞ্জ অ্যান্ড সামটাইমস্ স্যাডনেস’ এবং ‘ওয়েটিং ফর জে’) ‘ফ্যাবার অ্যান্ড ফ্যাবার’ প্রকাশনীর ‘ইন্ট্রোডাকশন সেভেন: স্টোরিজ বাই নিউ রাইটার্স’ সংকলনে প্রকাশিত হয় ।

যদিও কাজুও ইশিগুরোর ‘গেটিং পয়জনড্’ গল্পটি কখনই ‘গ্রান্টা’-য় প্রকাশিত হয়নি, কিন্তু ১৯৮৩ সালে সেই ‘গ্রান্টা’-ই তাঁকে ‘বেষ্ট অফ ইয়ং বৃটিশ নভেলিষ্টস্’ তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করেছে, এমনকি পরবর্তীতে তাঁর দু’টো ছোটগল্পও ছেপেছে । ‘দ্য সামার আফটার দ্য ও্যআর’ প্রকাশিত হয়েছে ১৯৮৩ সালে (সংখ্যা ৭) এবং ‘অক্টোবর ১৯৪৮’ গল্পটি প্রকাশিত হয়েছে ১৯৮৫ সালে (সংখ্যা ১৭) । যাহোক, পরবর্তীতে কাজুও ইশিগুরোর লেখা সেই চিঠি ‘গ্রান্টা’ প্রকাশ করেছে । বাংলা তরজমার সঙ্গে ইংরেজিতে লেখা মূল চিঠিও দেওয়া হলো ।

গিলফোর্ড,
সারে ।
৬ই ডিসে. ১৯৭৯ ।

ডিয়ার মিষ্টার বুফোর্ড

সম্প্রতি ম্যালকম ব্র্যাডবেরীর কাছ থেকে জানতে পেরেছি যে, বর্তমানে আপনি ‘গ্রান্টা’-কে নতুন করে সাজাচ্ছেন । সুতরাং আমি আপনার কাছে ‘গেটিং পয়জনড্’ পাঠালাম । আশাকরি আপনি উৎসাহিত হবেন । দয়া করে আপনি কী আপনার ম্যাগাজিনে প্রকাশের জন্য বিবেচনা করবেন ? আপনার মতামত জানালে কৃতজ্ঞ থাকবো । আপনার সময় এবং মনোযোগ দেওয়ার জন্য সবিনয় ধন্যবাদ জানাই ।

আপনার অকৃত্রিম অন্তরঙ্গ,

(মিষ্টার) কাজুও ইশিগুরো









পুনশ্চ: এস.এ.ই. সংযোজিত ।

1 টি মন্তব্য:

  1. জনাব ফজল হাসান, আপনার সাথে ইমেইল বা ফেইসবুকে যোগাযোগ কি সম্ভব?

    উত্তরমুছুন