শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৩

সরলরৈখিক গল্প খুব পছন্দ নয়

পার্থ মুখোপাধ্যায়

১. গল্প লিখতে শুরু করলেন কেন?

কবিতায় অনেক কিছু বলা সম্ভব হচ্ছিল না, আর বললেও হারিয়ে যাচ্ছিল শব্দের ফাঁকে ফাঁকে অনেক কিছু ।

২. শুরুর লেখাগুলো কেমন ছিল?

ছোট, তিন-চার প্যারাগ্রাফের । সেখান থেকে সটান উপন্যাসে চলে যাওয়া ।

৩. গল্প লেখার জন্য কি প্রস্তুতি নিয়েছেন? নিলে সেগুলো কেমন?

প্রথম উপন্যাসটির জন্য লিখতে গিয়ে প্রচুর ইতিহাস পড়তে হচ্ছে । ২৫-২৬টা বই ।

৪. আপনার গল্পলেখার কৌশল বা ক্রাফট কি?

একটি লাইন বা নতুন আইডিয়া মাথায় চলে এলে বাকিটা এমনি এগোতে থাকে । চেষ্টা করে হয় না দেখেছি ।

৫. আপনার নিজের গল্প বিষয়ে আপনার নিজের বিবেচনা কি কি?

বড় ক্যানভাসের লেখা ভাল আসে, যার একাধিক ডাইমেনশন নিয়ে কাজ করা যায় ।

৬. আপনার আদর্শ গল্পকার কে কে? কেনো তাঁদেরকে আদর্শ মনে করেন?

আমার বাংলা পঠন পাঠন খুব সীমিত । লেখালেখি শুরু তাই ইংরিজি কবিতা দিয়ে । রুশদি, মারকেজ, কুন্দেরা, হেমিংওয়ে, একজুপেরি, স্টেইনবেক, সল বেলো, টোনি মরিসন পড়া হয়েছে অনেক বেশি । এক এক জনের এক এক দিক টানে । সরলরৈখিক গল্প খুব পছন্দ নয় ।

৭. কার জন্য গল্প লেখেন? আপনি কি পাঠকের কথা মাথায় রেখে লেখেন? লিখলে কেন লেখেন? আর যদি পাঠকের কথা মনে না রেখে লেখেন তাহলে কেন পাঠককে মনে রাখেন না লেখার সময়ে?

আমার যা বলার সেটা বলার জন্য লিখি । অনেকে বলেন আমার কবিতা আস্তে আস্তে জটিল হয়ে যাচ্ছে । একটা গিঁটের ছবি, আমার মতে সেভাবেই আঁকা উচিত যাতে তার অতীত বর্তমান আর ভবিষ্যতের আঁচটা পাওয়া যায়, গিঁট খুলে সেটা দেখান যায় না অনেক সময় । অ-সরলরৈখিক চিন্তার প্রবাহ অনেকটাই গিঁটের মত, যার মস্তিষ্ক, সেই জানে কতোগুলো সুতো কিভাবে মিলে সেটা তৈরি হয়েছে । মজাটা, মিলেও না মেলার মধ্যে লুকিয়ে থাকে । নানা রকম দেখা ও না দেখা, পাওয়া ও না পাওয়া, সবই । চিত্রকলা বা গল্প বা কবিতা তারই প্রক্ষেপণ ।

৮. এখন কি লিখছেন?

গানপাগলা ধারাবাহিক উপন্যাস, অমর মিত্র দাদার বুকপকেট ম্যাগাজিনের জন্য লিখছি । বছর দুই এর কাজ । তাতেই চলে যাচ্ছে সব সময় ।

৯. আগামী কি লিখবেন?

একাধিক বাংলা ছোট গল্প অর্ধেক হয়ে পড়ে আছে, শেষ করার ইচ্ছে । ইংরিজি কবিতার বইয়ের কাজ বাকি, তার জন্য গোটাকয় নতুন কবিতা লিখে ফেলতে হবে । গানপাগলার ইংরিজি ভাবানুবাদ করার অনুরোধ এসেছে,সেটা নিয়ে ভাবছি । ভারতীয় রাগসংগীতের সঙ্গে আরব, ইরান, তুরস্ক আর আফ্রিকার কিছু অঞ্চলের গানের আদান-প্রদান নিয়ে একটা কিছু লেখার ইচ্ছে আছে ।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন